1. admin@www.independentbd.news : independentbd.news : News Desk
  2. sheikhnadir81@gmail.com : sk deen mahmud : sk deen mahmud
অগ্নিদগ্ধে ঘুমন্ত অবস্থায় স্কুল শিক্ষিকা মায়ের মৃত্যু দু'ছেলে গুরুতর দগ্ধ - independentbd.news
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৬:০০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
কপিলমুনিতে স্বামীকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে স্ত্রীকে ধর্ষণ প্রচেষ্টার অভিযোগ! উপকূলীয় পাইকগাছায় পানিবন্দি সহস্রাধিক পরিবারে সংকট বাড়ছে, অনেক এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ পুণ:স্থাপন হয়নি এখনো ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে নলছিটিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ডুমুরিয়ায় বখাটের হাতে লাঞ্ছিত স্কুল ছাত্রীর আত্নহত্যা! সৈয়দপুরের তিন কৃতি খেলোয়াড়কে উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সংবর্ধনা পৃথিবীর মতো গ্রহের সন্ধান নাসার, বছর হবে ১২.৮ দিনেই প্রধানমন্ত্রী দুর্গত এলাকা পরিদর্শনে যাবেন বৃহস্পতিবার ডুমুরিয়ায় মেরিন ফিসারিজ প্রকল্পের ৫দিনের প্রশিক্ষণ শুরু প্রস্তুতি পর্বে রাতে ফের যুক্তরাষ্ট্রের মুখোমুখি শান্ত-লিটনরা পাকিস্তানে ব্যাপক সংঘর্ষে ৫ সৈন্যসহ নিহত ২৮

অগ্নিদগ্ধে ঘুমন্ত অবস্থায় স্কুল শিক্ষিকা মায়ের মৃত্যু দু’ছেলে গুরুতর দগ্ধ

ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডেস্ক:
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ৩০ জুন, ২০২৩
  • ১৭৩ বার পড়া হয়েছে

রাজশাহীর বাগমারা উপজেলায় বাড়িতে আগুন লেগে ঘুমন্ত অবস্থায় ফরিদা ইয়াসমিন (৪২) নামে এক স্কুল শিক্ষিকার মৃত্যু হয়েছে।

এ ঘটনায় তার দুই ছেলে রাশিদুল বাসার ও শাফিউল বাসার আগুনে পুড়ে আহত হয়েছে। আহতদের রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিট থেকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুন) দিবাগত রাত ২টার দিকে উপজেলার মাদারিগঞ্জ বাজারের আশা সিনেমা হল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ফরিদা ইয়াসমিন দুর্গাপুর উপজেলার শিবপুর বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। তিনি দুর্গাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক্স-রে বিশেষজ্ঞ এজাজুল বাশার স্বপনের স্ত্রী।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, ঈদুল আজহার দিন তারা বাড়িতে পশু কোরবানি দেন। কোরবানির মাংস রান্না করে পরিবারের সকলে মিলে রাতে খাওয়া-দাওয়া করেন। খাওয়া দাওয়া শেষে এজাজুল বাশার স্বপন রাজশাহী নগরীর বাসায় চলে যান। আর শিক্ষিকা মা ও দুই ছেলে আলাদা আলাদা কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন। পরে চুলা থেকে বাড়িতে আগুন লেগে যায়। এরপর মা ফরিদা ইয়াসমিন শয়নকক্ষেই ঘুমন্ত অবস্থায় দগ্ধ হয়ে মারা যান। পাশের কক্ষে থাকা দুই ছেলেও আহত হন। তারা বাসার ছাদে উঠে নিচে লাফ দিয়ে বাঁচার চেষ্টা করেন।

পরে রাত পৌনে ৩টার দিকে তাদের উদ্ধার করে এলাকাবাসী রামেক হাসপাতালে পাঠায়। তাদের শরীরের ৪৫ শতাংশ পুড়ে গেছে বলে জানিয়েছেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের কর্তব্যরত চিকিৎসক। তাদের শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে শুক্রবার (৩০ জুন) সকাল সাড়ে ৮টায় তাদেরকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

বাগমারা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ফরিদার মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় তার দুই ছেলে আহত হয়েছেন। তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেওয়া হয়েছে। বর্তমানে নিহতের মরদেহ বাড়িতে রয়েছে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট নকশা প্রযুক্তি সহায়তায়: ইন্ডিপেন্ডেন্টবিডি আইটি টিম

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত: ইন্ডিপেন্ডেন্টবিডি মিডিয়া কর্পোরেশন লিঃ